এইচএসসি ডিপ্লোমা কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ

Shikha Songbad Sunday September 5, 2021

এইচএসসি ডিপ্লোমা ইন-কমার্স কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহঃ ২০২১ সালের একাদশ/দ্বাদশ ডিপ্লোমা ইন-কমার্স ৬ষ্ঠ সপ্তাহ কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ এসাইনমেন্ট সমাধান/উত্তর । ডিপ্লোমা ইন-কমার্স কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ । ২০২১ সালের অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার এসাইনমেন্ট কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ৪(চার)টি এসাইনমেন্ট দেয়া হয়েছে , এসাইনমেন্ট-৪ এসাইনমেন্ট সমাধান/উত্তর বিষয়ের বিস্তারিত তথ্য নিচে উল্লেখ করা হলো:

নিচে আমরা এইচএসসি ডিপ্লোমা ইন-কমার্স কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ উত্তর ছবির মাধ্যমে দিয়েছি। আপনার ইন্টারনেট কানেকশন স্লো হলে ছবি আসতে একটু সময় নিতে পারে। অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন। এবং বিস্তারিত দেখুন এইচএসসি ডিপ্লোমা ইন-কমার্স সকল এসাইনমেন্ট উত্তর আমাদের এই পেজে ।

HSC Diploma Computer Application assignment 6th week

কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ
কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ

ডিপ্লোমা ইন-কমার্স কম্পিউটার অফিস এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ

এসাইনমেন্ট উত্তর

কম্পিউটার ভাইরাস কী?

Virus শব্দটি কয়েকটি ওয়ার্ডের সংক্ষিপ্ত রূপ। এর পূর্ণরূপ হলো- Vital Information Resources Under Seize. সাধারণভাবে এর অর্থ গিয়ে দাঁড়ায়, গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ছিনিয়ে নিতে পারে এমন কিছু। বিস্তারিতভাবে বলতে গেলে কম্পিউটার ভাইরাস এমন একটি প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার, যা কম্পিউটারের ক্ষতি করার জন্য তৈরি করা হয়ে থাকে। এটি আক্রান্ত কম্পিউটারের ফাইল ও ডকুমেন্টস এর সাথে নিজেকে এটাচ করে নেয়।

ফলে এটি অন্যান্য কম্পিউটারেরও সহজে ছড়িয়ে যেতে পারে। অধিকাংশ কম্পিউটার ভাইরাসের মূল উদ্দেশ্য হলো, আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে ঢুকে সকল ফাইলগুলোকে মোডিফাই করে ক্ষতিকর কিছু প্রোগ্রাম সেট করে দেওয়া। এতে আপনার কম্পিউটার সিস্টেমও ওই ক্ষতিকর প্রোগ্রামটির মতো কাজ করবে এবং ধীরে ধীরে আপনার সবগুলো ফাইল করাপ্টেড করে ফেলবে। অনেক ক্ষেত্রে ফাইলগুলো সম্পূর্ণরূপে মুছে ফেলে।

কম্পিউটার ভাইরাসের ইতিহাস

বিশ্বে প্রথম কম্পিউটার ভাইরাস আবিষ্কার হয় ১৯৮৩ সালের ১০ নভেম্বর। যুক্তরাষ্ট্রের সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত ছাত্র ফ্রেড কোহেন পেলসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরাপত্তা বিষয়ক এক সেমিনারে প্রথমবারের মতো কম্পিউটার ভাইরাস প্রদর্শন করেন। তিনি সেমিনামে তার তৈরিকৃত প্রোগ্রামটি অন্য একটি কম্পিউটারে প্রবেশ করিয়ে অল্প সময়ের মধ্যেই সেই কম্পিউটারটি নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেন।

এই তৈরিকৃত প্রোগ্রামটি চিকিৎসা বিজ্ঞানের আবিষ্কৃত ভাইরাসের মতো নিজেই নিজের অনুলিপি সৃষ্টি করতে পারতো বলে এটির নামকরণ ওই ভাইরাসের সাথে তুলনা করে ‘Virus’ ই রাখা হয়।

যদিও অনেকের মতে ১৯৮২ সালে রিচ স্ক্রেনটা নামক ১৫ বছরের এক যুবকের তৈরি করা প্রোগ্রামকে প্রথম ভাইরাস হিসেবে উল্লেখ্য করে থাকে। এটি ফ্লপি ডিক্সের মাধ্যমে কম্পিউটারকে সংক্রমিত করতে পারতো৷ আবার কেউ কেউ মনে করেন ১৯৭০ সালে রবার্ট থমাস নামের এক ব্যক্তি ভাইরাস আবিষ্কার করেন। যার নাম ছিল ক্রিপার। এটিও নিজেই নিজের অনুলিপি তৈরি করতে পারতো।

কম্পিউটার ভাইরাস কত প্রকার ও কী কী?

আজ অবধি শত শত কম্পিউটার ভাইরাস আবিষ্কার হয়েছে। এবং দিনে দিনে সাইবার সন্ত্রাসীরা নতুন নতুন সব ভাইরাস আবিষ্কার করেই চলছে। তবে বর্তমানে কিছু ভাইরাস রয়েছে, যেগুলোর দ্বারা সিংহভাগ কম্পিউটার আক্রান্ত হয়ে থাকে। ভাইরাসগুলো হলো –
১. Worms
২. Trojans
৩. Browser Hijackers
৪. Overwrite Viruses
৫. Malware
৬. Spyware
৭. Adware Virus etc.

কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ করে কীভাবে?

মূলত অসর্তকতার কারণেই আমাদের কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকতে পারে।

১. কম্পিউটার আছে অথচ ইন্টারনেট ব্যবহার করে না, এমন কোনো ব্যবহারকারী পাওয়া দুষ্কর। আর অধিকাংশ ভাইরাসই কম্পিউটারে প্রবেশ করে ইন্টারনেটের মাধ্যমে৷ হতে পারে সেটা কোনো ফাইল বা সফটওয়্যার ইনসিকিউর কোনো সোর্স থেকে ডাউনলোড করার মাধ্যমে অথবা ভাইরাসে সংক্রমিত কোনো ওয়েবসাইটে ঢুকার ফলে।

২. আমরা বিভিন্ন প্রয়োজনে নিজের অথবা অন্য কারো USB ডিভাইস আমাদের কম্পিউটারে প্রবেশ করিয়ে থাকি৷ এবং বিভিন্ন ফাইল, সফটওয়্যার আদান-প্রদান করে থাকি৷ এক্ষেত্রে উক্ত USB ডিভাইসে ভাইরাস থাকলে তা খুব সহজেই আমাদের কম্পিউটারে প্রবেশ করতে পারে।

৩. আমরা যে মেইল ব্যবহার করে থাকি তাতে প্রতিদিনই পরিচিত-অপরিচিত অনেক সোর্স থেকে অসংখ্য মেইল আসতে থাকে। এবং অনেক মেইলে কোনো ফাইল এটাচ করা থাকে। সেসব ফাইল ওপেন করতে গিয়েও আমরা ভাইরাসের দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকি।

কম্পিউটার ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হবার লক্ষণ

আসলে ভাইরাসের নির্দিষ্ট কোনো লক্ষণ নাই। কারণ শত শত ভাইরাসের ভিতরে একেক ভাইরাস একেক কারণে বানানো হয়ে থাকে। আর সেটার উপর ভিত্তি করেই একেক ভাইরাসের একেক রকমের লক্ষণ থাকতে পারে৷ তবে বেশকিছু লক্ষণ আছে, ভাইরাসে আক্রান্ত হলে আমরা সে লক্ষণগুলো সচরাচর দেখতে পাই –

১. হঠাৎ করে কোনো ফাইল ডিলিট হয়ে যাওয়া।
২. কম্পিউটারে নিজে থেকেই অনাকাঙ্ক্ষিত কোনো সফটওয়্যার ইন্সটল হতে থাকে।
৩. কম্পিউটারে অথবা কোনো ব্রাউজারে ঢুকলে নিজে নিজেই বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের pop-up পেজ ওপেন হওয়া। অনেক সময় কোনো ব্রাউজারে ঢুকলে তা নিজে থেকে অন্য ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে।
৪. অনেক সময় কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেমে ঢুকে সিস্টেমের প্রোগ্রাম ফাইলগুলো করাপ্টেড হয়ে অপারেটিং সিস্টেম অকেজো হয়ে যায়।
৫. কম্পিউটার একটু পর পর রিস্টার্ট নেওয়া, সিস্টেম Error দেখানো, অপ্রয়োজনে কম্পিউটার হঠাৎ করেই বুট করতে থাকা।
৬. কোনো সফটওয়্যার বা ব্রাউজার ব্যবহার করার সময় হ্যাং করা, ক্র্যাস হয়ে সফটওয়্যার বা ব্রাউজারটি বন্ধ হয়ে যাওয়া।

এছাড়াও কম্পিউটার স্লো কাজ করা, ওপেন বা অফ হতে দেরি করা, ইন্টারনেট স্পিড স্লো কাজ করা, হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার এর কোনো ত্রুটি দেখানো ইত্যাদি। উপরিউক্ত লক্ষণগুলোর মধ্যে যদি কোনো একটি লক্ষণ আপনার কম্পিউটারে দেখা যায়, তাহলে ভেবে নিতে পারেন আপনার কম্পিউটার ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে। যদিও অন্য কোনো কারণেও এসব সমস্যা দেখা দিতে পারে।

কম্পিউটার ভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়

ভাইরাস থেকে কম্পিউটারকে রক্ষা করার সর্বোত্তম উপায় হলো কম্পিউটারে একটি ভালো এন্টিভাইরাস ইন্সটল করে রাখা। এটি আপনার কম্পিউটারকে অনেকাংশে ভাইরাস থেকে সুরক্ষা করবে। কিন্তু এই এন্টিভাইরাসই আপনার কম্পিউটারকে সুরক্ষা রাখতে যথেষ্ট নয়৷ প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে সাইবার অপরাধীরাও নতুন নতুন শক্তিশালী সব ভাইরাস আবিষ্কার করেই চলছে। তাই এসব ভাইরাস থেকে বাঁচতে ভালো এন্টিভাইরাস প্রোগ্রাম ইন্সটলের পাশাপাশি আমাদেরকেও সচেতন হতে হবে৷ আসুন, দেখে নেওয়া যাক; কম্পিউটার ভাইরাস থেকে বাঁচার উপায় সমূহ –

১. সর্বপ্রথম খেয়াল রাখতে হবে, আপনি যে অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করছেন এবং যেসব সফটওয়্যার ব্যবহার করছেন, সেগুলো আপডেট কিনা! অনেকেই আছেন, যাদের কম্পিউটারের কনফিগারেশন দুর্বল থাকার কারণে, অলসতার কারণে অথবা অভ্যাস হয়ে যাওয়ার কারণে পুরোনো অপারেটিং সিস্টেমেই কম্পিউটার চালিয়ে থাকেন৷ এ ভুলটি করবেন না৷ অবশ্যই চেষ্টা করবেন, অপারেটিং সিস্টেম বা যে কোনো সফটওয়্যারের সর্বশেষ আপডেট ভার্সনটি ব্যবহার করার।

২. আমরা অনেকেই ইন্টারনেট থেকে ফাইল বা সফটওয়্যার ডাউনলোড করে থাকি৷ সবসময় চেষ্টা করবেন ট্রাস্টেড কোনো সোর্স হতে ফাইল বা সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে। এবং ডাউনলোড করার পর তা ওপেন করার আগে অবশ্যই ফাইলটি স্ক্যান করে নিবেন।

৩. বিভিন্ন প্রয়োজনে বা ফাইল ও সফটওয়্যার ট্রান্সফারের জন্য আমরা কম্পিউটারে USB ডিভাইস প্রবেশ করিয়ে থাকি। এক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্ক অবলম্বন করতে হবে৷ USB থেকে যে কোনো ফাইল বা সফটওয়্যার ওপেন করার আগে অবশ্যই ভালো কোনো এন্টিভাইরাস দিয়ে স্ক্যান করে নিতে হবে।

৪. অপরিচিত কোনো সোর্স থেকে মেইল এলে সেই মেইলটি সাবধানে ওপেন করুন। মেইলে কোনো ফাইল এটাচ থাকলে তা ওপেন করার আগে অবশ্যই স্ক্যান করে নিবেন। এবং অধিক সন্দেহ জনক মনে হলে ওপেন না করে ডিলিট করে দিন।

৫. পাইরেটেড কোনো সফটওয়্যার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। সত্যি বলতে এগুলোকে ভাইরাসের কারখানা বলা চলে।
৬. আপনার কম্পিউটার যদি অন্য কোনো কম্পিউটারের সাথে নেটওয়ার্কিং করা থাকে আর সেই কম্পিউটারে যদি ভাইরাস থাকলে আপনার কম্পিউটারেও ভাইরাস আক্রমণ করবে। তাই কম্পিউটার কানেক্ট করার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন, সেই কম্পিউটার ভাইরাসমুক্ত কিনা!

৭. পাবলিক ওয়াইফাই সোর্স গুলো থেকে আপনার কম্পিউটারে ওয়াইফাই ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। পাবলিক ওয়াইফাই সোর্স থেকেও ভাইরাস আক্রমণের সম্ভাবনা থাকে।

৮. আর হ্যাঁ, প্রয়োজনীয় ফাইলগুলো অবশ্যই ব্যাকআপে রাখবেন। সাবধানতা অবলম্বন করার পরও যদি কম্পিউটার ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েই যায়, তাহলে মূল্যবান ডাটাগুলো অন্ততপক্ষে সেভ থাকবে।

কম্পিউটারে ভাইরাসের আক্রমনে পড়লে করণীয়

প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে প্রতিনিয়ত ভাইরাস গুলো নতুন রূপে আরো শক্তিশালী হয়ে আক্রমণ করে। ফলে অনেক সাবধানতা অবলম্বন করার পরও অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে ভাইরাসের আক্রমণে পড়ে যেতেই হয়। তাহলে কখনো যদি ভাইরাসের আক্রমণে পড়েই যান তাহলে কী করবেন? চলুন দেখে নেওয়া যাক –

১. আপনার কম্পিউটারে যদি ভাইরাস আক্রমণ করেই থাকে তাহলে সর্বপ্রথম একটি পেইড এন্টিভাইরাস ইন্সটল করুন। এগুলো অধিকাংশ ভাইরাসই ধ্বংস করার ক্ষমতা রাখে।

২. ভাইরাসের আক্রমনের শিকার হলে দ্রুত এন্টিভাইরাস দিয়ে সকল ফাইল স্ক্যান করে নিন এবং সংক্রমিত ফাইলগুলো চিহ্নিত করুন। ফাইলগুলো অপ্রয়োজনীয় হলে সাথে সাথে ডিলিট করে দিন।

৩. তবে মনে রাখবেন, এন্টিভাইরাস যেহেতু সব ধরনের ভাইরাস ধ্বংস করতে সক্ষম নয়, তাই পুরো কম্পিউটারকে ভাইরাসের আক্রমন হতে রক্ষা করতে কম্পিউটার সিস্টেম রিস্টোর দিয়ে দিন।

৪. কম্পিউটারে থাকা আপনার গুরুত্বপূর্ণ কোনো ডাটা বা ফাইল ভাইরাসের আক্রমনে নষ্ট বা হারিয়ে গেলে আপনার হার্ড ড্রাইউটি নিয়ে চলে আসুন আমাদের ‘ডাটা রিকভারি স্টেশন’ (Data Recovery Station) এ। আমরা অত্যাধুনিক সব সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যারের সাহায্যে সুক্ষ্ম পর্যবেক্ষনের দ্বারা নির্দিষ্ট ল্যাবে অভিজ্ঞ ডাটা রিকভারি টিমের মাধ্যমে আপনার ডাটা রিকভার করার চেষ্টা করবো৷

৫. ভাইরাস আক্রমনের ফলে আপনার কম্পিউটারে যদি খুব বেশি সমস্যা দেখা দেয় তাহলে ফুল উইন্ডোজ ফরমেট দিয়ে দিন। এবং নতুন করে আপডেট উইন্ডোজটি ইন্সটল করুন।

এইচএসসি বিএম সকল এসাইনমেন্ট উত্তর ৪র্থ সপ্তাহ

প্রিয় এইচএসসি বিএম ২০২১ সালের শিক্ষার্থী বন্ধুরা তোমাদের ৪র্থ সপ্তাহর এসাইনমেন্ট প্রকাশিত হয়েছে৷ নিচে ৪র্থ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক দেওয়া হলো ভালো করে দেখে নিন।

৪র্থ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট এর বিষয়উত্তর/সমাধান লিংক
ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা-১উত্তর লিংক
হিসাব বিজ্ঞান নীতি ও প্রয়োগ-১উত্তর লিংক
হিসাব বিজ্ঞান নীতি ও প্রয়োগ-২উত্তর লিংক
মার্কেটিং নীতি ও প্রয়োগ-২উত্তর লিংক
HSC BM এইচএসসি বিএম এ্যাসাইনমেন্ট

এইচএসসি বিএম ৫ম সপ্তাহ সকল এসাইনমেন্ট উত্তর

এইচএসসি বিএম ২০২১ সালের শিক্ষার্থী বন্ধুরা তোমাদের ৫ম সপ্তাহর এসাইনমেন্ট প্রকাশিত হয়েছে৷ নিচে ৫ম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক দেওয়া হলো ভালো করে দেখে নিন।

৫ম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট এর বিষয়উত্তর/সমাধান লিংক
হিসাববিজ্ঞান নীতি ও প্রয়োগ-১উত্তর লিংক
HSC BM এইচএসসি বিএম এ্যাসাইনমেন্ট

এইচএসসি বিএম ৬ষ্ঠ সপ্তাহ সকল এসাইনমেন্ট উত্তর

৬ষ্ঠ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট এর বিষয় উত্তর/সমাধান লিংক
হিসাববিজ্ঞান নীতি ও প্রয়োগ- উত্তর লিংক
ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা-১ (একাদশ) উত্তর লিংক
কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ উত্তর লিংক
ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা-২ (২য় বর্ষ) উত্তর লিংক
এইচএসসি ভোকেশনাল এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ

ডিপ্লোমা ইন-কমার্স সকল এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ

৬ষ্ঠ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট এর বিষয়উত্তর/সমাধান লিংক
ব্যাংকিং বীমা উত্তর লিংক
বানিজ্যিক ভূগোল উত্তর লিংক
কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-২ উত্তর লিংক
ব্যবসা সংগঠন উত্তর লিংক
Apply For jobs 24

Never miss a job opportunity

Get Apply For Jobs 24 on your phone
  • Access 1000s of jobs, on the go
  • Filtering to find the jobs that suit you
  • Apply directly and in real time
  • Applyforjobs24.Com Is A Fast Growing Bangladeshi Job Portal That Helps Jobseekers From All Sectors And Experience Levels, Such As Govt. And NGO. Jobs, Multi-National Jobs, Part-Time Jobs Part-Time Jobs (Especially Meant For..

    Read More About
    FOLLOW
    Download Mobile App